ধর্মপ্রাণ

অবাক হয়ে দেখছি যে আজ ধর্মপ্রাণের বাড়বাড়ন্ত
অস্ত্র শস্ত্র নিলে হাতে, তবেই ধর্ম হয় জীবন্ত!
গো মাতা কে পুজতে গিয়ে, হোক না কোতল মানব জীবন
স্বামীজী’র সেই মানব ধর্ম, থাকছে বইয়ে, ছোয় না যে মন

শিশু’র হাতে ধরিয়ে ছোরা, বুঝিয়ে দেওয়া, দেশটা আমার
নেই পেশী, তাই অস্ত্র জোরে, ভূমি কি আজ হচ্ছে খামার?
অন্য ধর্মালম্বী জেনো, আমার দেশে ব্রাত্য তুমি
ট্যা ফো করা বারন তোমার, এটা নয় যে তোমার ভূমি

বিশ্বমঞ্চে দেশের নাম কে, আলো দেখায় যে বিদ্বজন
চাটুকারের তকমা পেয়ে, আজ হলো সে একটি কু-জন
আমার কথা’র প্রতিবাদে, হবে তুমি দেশদ্রোহী
দূর হয়ে যাও এদেশ থেকে, এমন কথাই আমি কহি

বিষ্ণুদেব এর মৎস্যাবতার, করলো বাঙালি পাত খালি
মাছ খাওয়া টা ঘুচবে এবার, খেলেই খেতে হবে গালি
রবি ঠাকুরের সে নোবেল, ছিল নাকি অপাত্রে দান
মাইকেল এর গির্জা যাওয়া, দেশদ্রোহের বড় প্রমান

এমনতরো অনেক আছে, নিত্যনতুন, যায় যে দেখা
ধর্ম দোহাই দিয়েই যে আজ, রামরাজ্যের লিপি লেখা
রামের ধর্ম গিয়ে ভুলে, ঘৃণাধর্ম আপন করি
দেশের সাথে মিলিয়ে পা, হরি বোলো, বোলো হরি

Leave a Reply